1. admin@tungiparanews.com : নিউজ ডেস্ক : নিউজ ডেস্ক
  2. akjoy20@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৫১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
কোটালীপাড়ায় কলেজছাত্রীকে ইভটিজিং করায় ৪ বখাটের বিরুদ্ধে মামলা গোপালগঞ্জে বাক প্রতিবন্ধী জামিলকে রিক্সা দিলেন মামাস কাঠি ইউপি নির্বাচন : সম্ভাব্য প্রার্থী শেখ রোমানের পথসভা বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে গোপালগঞ্জ রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের নব নির্বাচিত কমিটির শ্রদ্ধা ডিডিজেএফ এর উদ্যোগে ‘হাওড় উৎসব’ অনুষ্ঠিত টুটুল চৌধুরীকে পুনরায় ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় ইউনিয়নবাসী গোহালায় নৌকা প্রতীক চান আওয়ামীলীগ নেতা শেখ ইকবাল গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় বিয়ে বাড়িতে হামলা : বাড়ি ঘর ভাংচুর, লুটপাট গোপালগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের প্রতিবাদ সংবাদ সম্মেলন চিড়িয়াখানা খুলতে পারে ২৫ আগস্টের মধ্যে

আমাদের যেন গলা থেকে পশ্চাৎদেশ, শরীরের পুরোটাই পাকস্থলি : জয়া

Reporter Name
  • আপডেট : রবিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২১

দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। দেশের পাশাপাশি নিয়মিত কলকাতার ছবিতেও কাজ করছেন তিনি। ক’দিন আগেই ওপার বাংলার ছবি ‘রবিবার’ ও ‘বিজয়া’র জন্য দ্বিতীয়বারের মতো পেয়েছেন ফিল্মফেয়ার পুরস্কার।

অভিনয়ের পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকেও বেশ সরব জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এই অভিনেত্রী। ব্যক্তিগত বিষয়, সিনেমার প্রচার আবার কখনও মানুষের সচেতনতা ও সাহায্যার্থে উপস্থিত হন ফেসবুকে। আজ সকালে তেমনই একটি ভিডিও ও পোস্ট ফেসবুকে প্রকাশ করেছেন জয়া।

২২ সেকেন্ডের এই ভিডিওটি করা হয়েছে জয়ার বাসার ছাদ থেকে। দেখা যায়, ধোঁয়াশা এক ঢাকার চিত্র। আর ক্যাপশনে জয়া লিখেছেন- ‘ভিডিও টা গতকাল সকাল ৮টার, ছাদে উঠেই থমকে গেলাম। যেন অবিকল কোনো ডিস্টোপিয়ান সায়েন্স ফিকশনের সেট পড়েছে শহরজুড়ে। ধোঁয়া ধোঁয়া, চারপাশে সব অস্পষ্ট। ধুলো আর ধোঁয়া মিলে ধোঁয়াশার পেটে পুরো শহর। চোখ বেশি দূর চলে না। শ্বাস নিতে কষ্ট হয়। হায়, আমার শহর।’

বায়ুদূষণে দেশের অবস্থান তুলে ধরে তিনি আরও লিখেন, ‘আর কিছুতে না পারি, বায়ুদূষণে আমরা বিরাট চ্যাম্পিয়ন। কিছুদিন পরপরই সারা পৃথিবীতে উল্টো দিক থেকে প্রথম হচ্ছি। আর আমাদের ফুসফুস ভরে যাচ্ছে বিষাক্ত ক্বাথে।’

উন্নয়নের নামে পরিবেশ নষ্ট করা হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি লিখেছেন, ‘আমাদের যেন গলা থেকে পশ্চাৎদেশ, শরীরের পুরোটাই পাকস্থলি। খিদের শেষ নেই। খালি বড় করে কামড়ে ধরো আর খাও। পরিবেশের বারোটা বাজল তো আমার কী হলো! ইট পোড়ানো ধোঁয়ায় আমরা শহর ডুবিয়ে দেব। আপনি বাঁচলে বাপের নাম। উন্নয়নকাজের ধুলোয় অন্ধকার করে দেব দেশ। আর কোনো দেশে কি উন্নয়ন হচ্ছে এত?

সবশেষে জয়া লিখেছেন, ‘তোমাদের ফুসফুস পচে যাক। তোমাদের দম বন্ধ হয়ে আসুক। একদিন তোমরা সবাই মরে যাও। এই শহর বেঁচে থাকবে, একাই। বাবা, এর নাম উন্নয়ন। হায়, আমার শহর!’

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর