খেলাধুলা

মুমিনুল-নাজমুলের উদযাপনে ফুরালো প্রথম সেশন

৬৪ রানে অপরাজিত ছিলেন মুমিনুল হক, আর নাজমুল হোসেন শান্ত ১২৬ রানে। দ্বিতীয় দিন মাঠে নেমে আগের দিনের মতোই সাবলীল ছিলেন দুজন। প্রথম সেশনে ২৮ ওভার ব্যাট করলেন তারা, স্কোরবোর্ডে যোগ করলেন ৭৬ রান। ২ উইকেটে ৩০২ রানে দিন শুরু করা বাংলাদেশ ক্যান্ডি টেস্টের দ্বিতীয় দিন লাঞ্চ বিরতিতে গেছে ৩৭৮ রানে।

স্কোর: বাংলাদেশ ১১৮ ওভারে ৩৭৮/২ (শান্ত ১৫৫*, মুমিনুল ১০৭*)

দলকে বড় স্কোর এনে দেওয়ার পথে সেঞ্চুরি উদযাপন করেছেন মুমিনুল, আর প্রথম শতককে দেড়শতে নিয়ে গেছেন শান্ত। তৃতীয় উইকেটে দুজনের ২২৬ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি শেষ পর্যন্ত কোথায় গিয়ে ঠেকে তা দেখার অপেক্ষা।

শান্তর ১৫০

প্রথম সেঞ্চুরিকে দেড়শতে রূপ দিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। ২৩৫ বলে শতক উদযাপনের পর আর ১০৯ বল খেলে পৌঁছে যান এই মাইলফলকে। সপ্তম বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে ১৫০ রানের ইনিংস খেললেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।

এর আগে মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুমিনুল হক, ইমরুল কায়েস ও মোহাম্মদ আশরাফুল দেড়শ বা তার বেশি রানের ইনিংস খেলেন। তিনটি ডাবল সেঞ্চুরি রয়েছে মুশফিকের, আর সাকিব ও তামিম একটি করে দ্বিশতক হাঁকান।

মুমিনুলের সেঞ্চুরি

৬৪ রানে অপরাজিত থেকে দিন শুরু করেছিলেন মুমিনুল হক। দেশের সর্বোচ্চ সেঞ্চুরিয়ান সংখ্যাটা নিয়ে গেলেন ১১ তে। ২২৪তম বলে ধনঞ্জয়া ডি সিলভার বলে নবম চার মেরে এই স্বস্তির শতক উদযাপন করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। দেশের বাইরে এটাই তার প্রথম সেঞ্চুরি।

স্কোর বড় করার লক্ষ্যে দ্বিতীয় সকালে বাংলাদেশ

বাংলাদেশের দাপট পাল্লেকেলেতে প্রথম দিন দাপট দেখায় বাংলাদেশ। ২ উইকেট হারিয়ে জমা করে ৩০২ রান। বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দেন তামিম ইকবাল। কিন্তু ১০ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করেন তিনি। তাকে সঙ্গ দেন শান্ত। তামিম ভুল করলেও শান্ত ঠিকই তুলে নেন সেঞ্চুরি। অপরাজিত থাকেন ১২৬ রানে।

মুমিনুল অপেক্ষায় আছেন দেশের বাইরের প্রথম সেঞ্চুরির। তার ব্যাট থেকে আসে ৬৪ রান।

এই বিভাগের সর্বশেষ খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button