২০০ অসহায় পরিবারের পাশে বাংলাদেশ যুব-খ্রিস্টান এসোসিয়েশন 

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন। প্রতিদিনই দেশে মরছে মানুষ, দিন যায় লাশের সারি দীর্ঘ হয়। করোনা আতঙ্কে ঘরবন্দি মানুষ। সেই অবস্থায় লকডাইনে গৃহবন্দি মানুষের কথা চিন্তা করে গোপালগঞ্জ জেলার বিভিন্ন গ্রাম ও শহর ঘুরে দরিদ্র, অসহায় ও কর্মহীন মানুষের মাঝে ভালোবাসার উপহার হিসেবে খাদ্য-সামগ্রী বিতরন করেন বাংলাদেশ যুব-খ্রিস্টান এসোসিয়েশন । বিতরন কার্যক্রমটি পরিচালনা করেছেন সংগঠনটির সভাপতি শিমিয়োন হাজরা জয় ও সাধারন সম্পাদক মুন্না বালা। সংগঠনটি তাদের নিজেদের অর্থায়নে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেন ।

সভাপতি শিমিয়োন হাজরা জয় বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে গ্রামের অনেক মানুষ এখন কর্মহীন । জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অনেকে কাজ করলেও বেশিরভাগ মানুষই এখন কর্মহীন বা ঘরবন্দী হিসেবে জীবন অতিবাহিত করছেন । অনেকে কাজের সন্ধান করলেও বর্তমান পরিস্থিতিতে কাজ পাওয়া কষ্টসাধ্য ব্যাপার । কোথাও কোন কাজ নেই। অনেকের জমানো টাকাও শেষ। তাই অনেকের ঘরেই জুটছে না তিনবেলার খাবার । অনেকে কর্মহীন হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। এমতাবস্থায় বাংলাদেশ-খ্রিষ্টান এসোসিয়েশন এর সভাপতি নির্মল রোজারিও -এর নির্দেশনায় বাংলাদেশ যুব-খ্রিস্টান এসোসিয়েশন তাদের সাধ্যমত অসহায় ও কর্মহীন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

শিমিয়োন আরো বলেন, বাংলাদেশ-খ্রিষ্টান এসোসিয়েশন এর সভাপতি নির্মল রোজারিও প্রবাসী ও বাংলাদেশের খ্রিষ্টান NGO যে এনজিও গুলো আর্থিকভাবে সচ্ছল তাদের সাথে যোগাযোগ রাখছেন যেন এই দুর্যোগকালীন সময়ে তারা অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন। মানবিকতার এই ডাকে সুদুর আমেরিকা প্রবাসী ক্যালভিন katrina love for Bangladesh Inc এর প্রতিষ্ঠাতা বাংলাদেশের জন্য চিন্তা করেছেন এবং সহযোগীতা করেছেন তাই তিনি তাকে ও তার সংগঠন’কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন এবং সেই সাথে তিনি সমাজের যাদের অসহায় মানুষের পাশে এই সময় দাড়ানোর মতো ক্ষমতা সৃষ্টিকর্তা দিয়েছেন তাদের কে অসহায় মানুষের জন্য কিছু করার অনুরোধ জানিয়েছেন!

২০০টি পরিবারকে দেওয়া প্যাকেটে ছিলো

৫ কেজি চাল, ১ কেজি ডাল, ১ কেজি পেঁয়াজ, ২ কেজি আলু, ১টি সাবান, ১ কেজি লবন ও ১লিটার সয়াবিন তেল প্রদান করা হয়।

শিমিয়োন বলেন, বাংলাদেশ যুব-খ্রিস্টান এসোসিয়েশন গরীব, অসহায় মানুষের মানুষের মাঝে হাসি ফুটানোর এ ক্ষুদ্র প্রয়াস প্রয়োজনে অব্যাহত থাকবে। আমাদের সংগঠন নিজারা ভালো থাকায় বিশ্বাসি না সবাইকে সাথে নিয়ে ভালো থাকতে চাই । আমরা অসহায় মানুষের সুখে দু:খে আগেও যেমন ছিলাম ভবিষৎতে ও থাকতে চাই ।