চার শিক্ষার্থীর হারিয়ে শোকে স্তব্ধ কাশিয়ানীর গোটা মহেশপুর ইউনিয়নবাসী

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি,গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীর মহেশপুর ইউনিয়ন যেন শোকের নগরী। সবার চেখে পানি। জয়নগর উচ্চ বিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থীকে হারিয়ে শোকে বাকরুদ্ধ গোটা এলাকার মানুষ।

শোক কি আর শক্তি হয়, শোকতো যন্ত্রণার দাবদাহ। এমন নির্মম ট্রাজেডি এত সহজেই কি ভুলতে পারে কেউ। কারণ এ ক্ষত মুছবার নয়, এ শোক ভোলার নয়, এ শোক মর্মস্পর্শী।

চোখের পানিকে শাসন করার সাধ্য কার। পানি গড়িয়ে পড়ে মুখের শরীর। সন্তান হারানো বাবার আর্তনাদে যেন প্রকৃতিও মুখ বুজে নেই। অবারিত প্রকৃতিও যেন সামিল হয়েছে কান্নার বিলাপে। নিহত শিক্ষার্থীদের সহপাঠী, বন্ধু, আত্মীয়-স্বজন কাঁদছে। এই কান্না থামার নয়, থামাবার সাধ্য কার। স্বজনদের আহাজারীতে মুহূর্তেই কেঁদে ফেলছে সবাই।

প্রিয় চার ছাত্রকে হারিয়ে শোকে কাতর জয়নগর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। নিহতরা হলেন কাশিয়ানীর জয়নগর উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী নাওরাদোলা গ্রামের মো. ফরিদ শরীফের ছেলে মো. ইয়াসিন শরীফ (১৬), দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী হিরণ্যকান্দি গ্রামের মো. আশরাফ আলী মিয়ার ছেলে মো. রায়হান রুহিন (১৫), দশম শ্রেণির আরেক ছাত্র হিরণ্যকান্দি গ্রামের মো. আহাদ তালুকদারের ছেলে মো. সোহানকে (১৫) ও দশম শ্রেণির ছাত্র হিরণ্যকান্দি গ্রামের মো. লাবু খন্দাকারের ছেলে আল আমিন খন্দকার (১৫)।

বিশ্বনাথপুর রেলক্রসিংয়ে রেলের ধাক্কায় তিন শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনার পর তা নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। সেখানে লেভেল ক্রসিং বা সতর্কীকরণ ব্যবস্থা না থাকায় এ ধরনের দুর্ঘটনা ঘটছে। অনেকেই মুঠোফোনে কথা বলতে বলতে রেললাইন পার হয়ে যান। রেল কতৃপক্ষের অসচেতনতার কারণে প্রায়ই সংবাদের শিরোনামে উঠে আসে বিভিন্ন দুর্ঘটনার খবর।