মুজিববর্ষ হবে হকির নবজাগরণের বছর : ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

বিশেষ সংবাদদাতা,‘হকি অতি জনপ্রিয় খেলা। জনপ্রিয়তার দিক থেকে ফুটবল-ক্রিকেটের পরই হকির অবস্থান। আমাদের সরকার হকির উন্নয়নে অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করছে। মুজিববর্ষ হবে হকির নবজাগরণের বছর। এ সময়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে একাধিক টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হবে।

কথাগুলো বলেছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি।

বুধবার রাজধানীর ফ্যালকন হলে ‘বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্কুল হকি প্রতিযোগিতার’ লোগো ও জার্সি উন্মোচন করা হয়েছে। বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের সভাপতি বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার ভাইস মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাতের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কথাগুলো বলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী।

ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উদযাপন করছি। ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ এ মহানায়কের জন্মশতবর্ষের ক্ষণগণনা। জাতির পিতার জন্মশতবর্ষকে স্মরণীয় করে রাখতে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় ও বিভিন্ন ক্রীড়া ফেডারেশন নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। আমরা জাতির পিতার জন্মশতবর্ষে ১০০টি ইভেন্ট আয়োজন করছি। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন আয়োজন করছে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্কুল হকি প্রতিযোগিতা। বিশ্বাস করি, এ প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে আমাদের নতুন প্রজন্ম, আমাদের ছাত্রছাত্রীরা বঙ্গবন্ধুকে নতুনভাবে জানার সুযোগ লাভ করবে।

শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায় সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘খেলাধুলা শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। বেশি বেশি ক্রীড়াচর্চার মাধ্যমে সামাজিক অবক্ষয়, উগ্রবাদ, জঙ্গিবাদকে পরাভূত করা সম্ভব। সামাজিক সম্প্রীতি বজায় রাখা ও ভ্রাতৃত্ববোধ সৃষ্টিতে খেলাধুলার গুরুত্ব অপরিসীম। হকি ফেডারেশনেকে ধন্যবাদ জানাই জাতীয়ভাবে স্কুল হকি প্রতিযোগিতা আয়োজন করায়।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুর রশিদ শিকদারসহ ফেডারেশনের অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।